সালাফী আকিদা ও মানহাজে - Salafi Forum

Salafi Forum হচ্ছে সালাফী ও সালাফদের আকিদা, মানহাজ শিক্ষায় নিবেদিত একটি সমৃদ্ধ অনলাইন কমিউনিটি ফোরাম। জ্ঞানগর্ভ আলোচনায় নিযুক্ত হউন, সালাফী আলেমদের দিকনির্দেশনা অনুসন্ধান করুন। আপনার ইলম প্রসারিত করুন, আপনার ঈমানকে শক্তিশালী করুন এবং সালাফিদের সাথে দ্বীনি সম্পর্ক গড়ে তুলুন। বিশুদ্ধ আকিদা ও মানহাজের জ্ঞান অর্জন করতে, ও সালাফীদের দৃষ্টিভঙ্গি শেয়ার করতে এবং ঐক্য ও ভ্রাতৃত্বের চেতনাকে আলিঙ্গন করতে আজই আমাদের সাথে যোগ দিন।

অন্যান্য সুরত শব্দের অর্থ : বিতর্ক এবং সমাধান

একাধিক হাদিসে আল্লাহ তাআলার সিফত (গুণ-বৈশিষ্ট) হিসেবে ‘সুরত’ শব্দটি সাব্যস্ত হয়েছে। তবে এর বাংলা অর্থ কী হবে তা নিয়ে ইদানীং বিস্তর আলোচনা-পর্যালোচনা এবং তর্ক-বিতর্ক চলছে। কেউ বলছে, এর অর্থ হবে, রূপ; আকৃতি অর্থ করা ভুল। কেউ বলছে, এর অর্থ ‘আকৃতি’ করায় কোনও দোষ নেই।

আবার কেউ কেউ বলছে, সুরত-এর কোন অর্থই করা যাবে না। অর্থাৎ তাদের মতে সুরত দ্বারা কী উদ্দেশ্য সেটা ব্যাখ্যা করা যাবে না। এটি বাতিল মতবাদ। যারা আল্লাহর সিফাতের ক্ষেত্রে শুধু শব্দ সাব্যস্ত করে কিন্তু অর্থ বর্ণনা করে না তাদেরকে বলে তাদেরকে মুফাব্বিযা (المفوضة) বলা হয়।

যাহোক তাহলে সুরত শব্দটির সঠিক অর্থ পরিষ্কার করা প্রয়োজন। আর তা জানার জন্য আমাদেরকে আরবি ভাষা এবং ভাষার অভিধানের পাশাপাশি আকিদা বিশেষজ্ঞ আলেমদের শরণাপন্ন হতে হবে।

নিম্নে আমরা আরবি ও বাংলা অভিধান এবং আলেমদের মতামতের আলোকে কেবল সুরত শব্দের অর্থ বিশ্লেষণ পেশ করব ইনশাআল্লাহ।

সুরত (الصورة) আরবি শব্দের আভিধানিক বাংলা অর্থ: রূপ, আকার-আকৃতি ইত্যাদি। সবগুলোই সঠিক। কোনটিকেই ভুল বলার সুযোগ নাই। প্রায় সকল বিখ্যাত আরবি অভিধানে সুরত শব্দটি অর্থ করা হয়েছে, شكل (আকার-আকৃতি)।

যেমন:

১. বিশিষ্ট ভাষাবিদ আল্লামা ইবনুল মনজুর [মৃত্যু: ৭১১ হি.] তার বিখ্যাত লিসানুল আরব অভিধানে উল্লেখ করেছেন, الصُّورَةُ فِي الشَّكْل "সুরত অর্থ: শাকল বা আকৃতি।"

২. বিখ্যাত আরবি অভিধান 'আল মুজামুল ওয়াসিত' এ বলা হয়েছে,
الصُّورَةُ : الشَّكْلُ، والتمثالُ المجسّم وفي التنزيل العزيز: الانفطار آية 7 الصُّورَةُ 8الَّذِي خَلَقَكَ فسَوَّاكَ فَعَدَلَكَ فِي أَيِّ صُورَةٍ ما شَاءَ رَكَّبَكَ
“সুরত -এর একটি অর্থ: شكل বা আকৃতি।” [almaany]

৩. বিখ্যাত আরবি অভিধান আল কামুসুল মুহিত-এ বলা হয়েছে,
صُورَةُ: الشَّكْلُ، ج: صُوَرٌ وصِوَرٌ وصُوْرٌ
“সুরত-এর অর্থ শাকল বা আকৃতি।”

৪. বিখ্যাত আরবি অভিধান 'আর রায়েদ' এ বলা হয়েছে,
صورة : شكل. 2- صورة : وجه. 3- صورة : كل ما يصور. 4- صورة : صفة. 5- صورة : نوع
“সুরত-এর একটি অর্থ: শাকল বা আকার।”

• সুরত শব্দটি বাংলা ভাষাতেও রূপ ও আকৃতি উভয় অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে। যেমন:

৫. বাংলা একাডেমী ব্যবহারিক বাংলা অভিধানে এ শব্দটির অর্থ করা হয়েছে: ১. আকৃতি, ২. রূপ।

৬. সুরত2 [surata2 ] বি. 1 চেহারা, আকৃতি [educaling]

৭. ড. ফজলুর রহমান রচিত আরবী-বাংলা ব্যবহারিক অভিধানে সুরত শব্দটির একাধিক অর্থ করা হয়েছে। সেগুলোর মধ্যে একটি হলো: আকৃতি।

• এবার দেখি যারা বলছেন যে, সুরত অর্থ ‘রূপ’ করা যাবে কিন্তু ‘আকার’ করা যাবে না-তাদের বক্তব্য কতটুকু সঠিক?

প্রকৃতপক্ষে রূপ-শব্দেরও একটি অর্থ আকৃতি। আরেকটি অর্থ: সৌন্দর্য, শোভা, খুবসুরতি (উদাহরণ: “রূপ যেন ফেটে পড়ছে।” [উৎস: বাংলা একাডেমী ব্যবহারিক বাংলা অভিধান] তাহলে বুঝা গেল, বাংলা ভাষায় রূপ এবং আকৃতিও সমার্থবোধক।

আমার কাছে মনে হয়েছে, আরবি ও বাংলা ভাষা সাহিত্যে সীমাবদ্ধ জ্ঞানের কারণে এ ধরণের বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। আমরা জানি, সব ভাষাতেই একটি শব্দের একাধিক অর্থ থাকে এবং অবস্থা ও প্রেক্ষাপট অনুযায়ী আলোকে তা ভিন্ন ভিন্ন অর্থে ব্যবহৃত হয়। এখানেও এ শব্দগুলোর একাধিক অর্থ রয়েছে। সেখান থেকে কেবল উদ্দিষ্ট অর্থটি এখানে পেশ করা হয়েছে।

❑ ‘সুরত’ শব্দের অর্থ: আকার-আকৃতি করার বৈধতা বিষয়ে আলেমদের ফতোয়া:

১. আল্লাহর সূরত সিফাতের অনুবাদ হিসেবে ‘শাকল’ (আকার)’ বলা বৈধ মর্মে মিশরের প্রখ্যাত সালাফী শাইখের ফতোয়া:

মিশরের বিশিষ্ট সালাফি বিদ্বান, আলেকজান্দ্রিয়া ইউভার্সিটির প্রফেসর শায়খ ড. তালা'আত যাহরান হাফিযাহুল্লাহ-এর সাথে এ সম্পর্কে প্রশ্নোত্তর:
السؤال: السلام عليكم ورحمة الله وبركاته. أحسن الله إليكم شيخنا،أنا من بنجلاديش. هل تترجم صفة الصورة لله بمعنى الهيئة والشكل ؟ أفيدونا بارك الله فيكم. الجواب: نعم صحيح.

প্রশ্ন: আসসালামুয়ালাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ ওয়া বারাকাতুহ। আল্লাহ আপনার প্রতি ইহসান করুন, শায়খ, আমি বাংলাদেশ থেকে বলছি। আল্লাহর "সূরত" সিফাতটি কি শাকল ও হাইয়াত (আকার ও আকৃতি) অর্থে অনুবাদ করা যাবে? উপকৃত করবেন, বারাকাল্লাহু ফীকুম।
উত্তর: হ্যাঁ, সঠিক।

২. সৌদি আরবের সাবেক গ্র্যান্ড মুফতি শাইখ ইবনে বায রহিমাহুল্লাহ-এর খাস ছাত্রদের অন্যতম, অসংখ্য কিবার উলামা ও মুহাদ্দিসদের থেকে তাযকিয়া ও ইজাযা প্রাপ্ত শাইখ, প্রখ্যাত দায়ী, শাইখ ড. বদর বিন আলী আলউতাইবী হাফিযাহুল্লাহ-এর ফতোয়া:
السؤال : ‏السلام عليكم ورحمة الله وبركاته. شيخنا الفاضل، أحسن الله إليكم. أنا من بنغلاديش. حدث في بلادنا في الآونة الأخيرة التشنيعُ من قبل بعض السلفيين على بعض الدعاة السلفيين عن ترجمة صفة الصورة لله عز وجل. المشنعون يقولون بأن صفة الصورة لا تترجم إلى البنغالية، مع أننا نجد في كلام العرب أن صفة الصورة تدل على الهيئة والشكل. فهل تترجم هذه الصفة على معنى الشكل والهيئة، أم تترك الترجمة مع إمرراها كما وردت؟
الجواب : ‏وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته لا مانع من ترجمة كل ما في القرآن والسنة من صفات الله تعالى من غير تمثيل بالمخلوق. وصورة الشيء لو ترجمت بلغة أخرى بمعنى: الهيئة والشكل لا بأس في ذلك
প্রশ্নকারী: আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহ। আমাদের সম্মানীয় শাইখ, আল্লাহ আপনার প্রতি অনুগ্রহ করুন। আমি বাংলাদেশ থেকে বলছি। সম্প্রতি আমাদের দেশে এরকম ঘটনা ঘটেছে যে, কিছু সালাফি ব্যক্তি কতিপয় সালাফি দায়ীর নিন্দা-সমালোচনা করছে মহান আল্লাহর সূরত সিফাতের অনুবাদ করা নিয়ে। নিন্দুকরা বলছে, সূরত সিফাতকে বাংলা ভাষায় অনুবাদ করা যাবে না। অথচ আমরা আরবি ভাষায় দেখি, সূরত সিফাতটি শাকল ও হাইআত (আকার ও আকৃতি) বোঝায়। তাহলে এই সিফাতকে কি শাকল ও হাইআত (আকার ও আকৃতি) এর অর্থ অনুযায়ী অনুবাদ করা যাবে, নাকি সিফাতটি অনুবাদ না করে যেভাবে এসেছে সেভাবেই বর্ণনা করে রেখে দিতে হবে?
শাইখ: ওয়া আলাইকুমুস সালাম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহ। কুরআন-সুন্নাহয় মহান আল্লাহর যত সিফত বর্ণিত হয়েছে, সবগুলোর অনুবাদ করায় কোনও বাধা নাই, যদি তাতে মখলুকের সাথে সাদৃশ্য দেওয়া না হয় তাহলে। সুতরাং কোনও কিছুর সূরত যদি অন্য ভাষায় হাইআত ও শাকল (আকার ও আকৃতি) এর অর্থ অনুযায়ী অনুবাদ করা হয়, তাহলে তাতে কোনও সমস্যা হবে না।

উৎস: শাইখ বদরের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টের প্রাইভেট মেসেজ-বক্সে তাঁর প্রশ্নোত্তর। [কৃতজ্ঞতা সহ ফতোয়া দুটি সংগ্রহ করা হয়েছে প্রিয় ভাই yiakubabulkalam-এর টাইম লাইন থেকে]
তাহলে একাধিক আরবি ও বাংলা অভিধান এবং বিজ্ঞ আলেমদের ফতোয়ার আলোকে প্রমাণিত হল যে, সুরত ও শাকল শব্দটি সমার্থবোধক। অতএব সুরত শব্দটির অর্থ: রূপ এবং আকার-আকৃতি গ্রহণ করতে কোনও আপত্তি নাই।

❑ সর্বশেষে আমাদেরকে দুটি বিষয়ে মনে রাখতে হবে:

১ম: আল্লাহর সিফত ও সুরত কেবল তাঁর মত। তাঁর সাথে সৃষ্টির কোনও সাদৃশ্য নেই। আল্লাহ তাআলা বলেন,
لَيْسَ كَمِثْلِهِ شَيْءٌ ۖ وَهُوَ السَّمِيعُ الْبَصِيرُ
“কোন কিছুই তাঁর অনুরূপ নয়। তিনি সব শুনেন, সব দেখেন।" [সূরা শুরা: ১১]

২য়: আল্লাহর সুরত (রূপ কিংবা আকার) দ্বারা কেবল সেই সিফতই সাব্যস্ত করতে হবে যা কুরআন ও বিশুদ্ধ হাদিসের বর্ণিত হয়েছে। যেমন: আল্লাহর হাত, পা, চোখ, আঙ্গুল ইত্যাদি। এখানে ইজতিহাদ করে কুরআন-সুন্নাহর বাইরে নতুন কোন সিফত সাব্যস্ত করা জায়েজ নেই। (যেমন: কান, নাক, পেট ইত্যাদি-এগুলো সাব্যস্ত নয় )। সুতরাং আরবি ভাষায় আল্লাহর জন্য ‘সুরত’ শব্দটি প্রমাণিত হলেও ‘শাকল’ শব্দটি প্রমাণিত নয়।

সারাংশ: সুরত শব্দটির বাংলা অর্থ: রূপ অথবা আকার-আকৃতি উভয়টি সঠিক। এগুলোর কোনটিকেই আরবি অথবা বাংলা ভাষাগত দিক থেকে ভুল বলার সুযোগ নেই। তবে এর উপর ভিত্তি করে, কুরআন ও সহিহ সুন্নাহর বাইরে আল্লাহ তাআলার জন্য নতুন কোনও সিফত (গুণ-বৈশিষ্ট্য) সাব্যস্ত করা জায়েজ নয়। বরং এর দ্বারা কেবল সে সকল সিফতই উদ্দেশ্য হবে, যেগুলো কুরআন ও সহিহ সুন্নাহ দ্বারা সাব্যস্ত হয়েছে।

আল্লাহু আলাম।
লেখক: আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সৌদি আরব
 

Golam Rabby

Knowledge Sharer

ilm Seeker
HistoryLover
Q&A Master
Salafi User
Credit
3,477
একাধিক হাদিসে আল্লাহ তাআলার সিফত (গুণ-বৈশিষ্ট) হিসেবে ‘সুরত’ শব্দটি সাব্যস্ত হয়েছে। তবে এর বাংলা অর্থ কী হবে তা নিয়ে ইদানীং বিস্তর আলোচনা-পর্যালোচনা এবং তর্ক-বিতর্ক চলছে। কেউ বলছে, এর অর্থ হবে, রূপ; আকৃতি অর্থ করা ভুল। কেউ বলছে, এর অর্থ ‘আকৃতি’ করায় কোনও দোষ নেই।

আবার কেউ কেউ বলছে, সুরত-এর কোন অর্থই করা যাবে না। অর্থাৎ তাদের মতে সুরত দ্বারা কী উদ্দেশ্য সেটা ব্যাখ্যা করা যাবে না। এটি বাতিল মতবাদ। যারা আল্লাহর সিফাতের ক্ষেত্রে শুধু শব্দ সাব্যস্ত করে কিন্তু অর্থ বর্ণনা করে না তাদেরকে বলে তাদেরকে মুফাব্বিযা (المفوضة) বলা হয়।

যাহোক তাহলে সুরত শব্দটির সঠিক অর্থ পরিষ্কার করা প্রয়োজন। আর তা জানার জন্য আমাদেরকে আরবি ভাষা এবং ভাষার অভিধানের পাশাপাশি আকিদা বিশেষজ্ঞ আলেমদের শরণাপন্ন হতে হবে।

নিম্নে আমরা আরবি ও বাংলা অভিধান এবং আলেমদের মতামতের আলোকে কেবল সুরত শব্দের অর্থ বিশ্লেষণ পেশ করব ইনশাআল্লাহ।

সুরত (الصورة) আরবি শব্দের আভিধানিক বাংলা অর্থ: রূপ, আকার-আকৃতি ইত্যাদি। সবগুলোই সঠিক। কোনটিকেই ভুল বলার সুযোগ নাই। প্রায় সকল বিখ্যাত আরবি অভিধানে সুরত শব্দটি অর্থ করা হয়েছে, شكل (আকার-আকৃতি)।

যেমন:

১. বিশিষ্ট ভাষাবিদ আল্লামা ইবনুল মনজুর [মৃত্যু: ৭১১ হি.] তার বিখ্যাত লিসানুল আরব অভিধানে উল্লেখ করেছেন, الصُّورَةُ فِي الشَّكْل "সুরত অর্থ: শাকল বা আকৃতি।"

২. বিখ্যাত আরবি অভিধান 'আল মুজামুল ওয়াসিত' এ বলা হয়েছে,
الصُّورَةُ : الشَّكْلُ، والتمثالُ المجسّم وفي التنزيل العزيز: الانفطار آية 7 الصُّورَةُ 8الَّذِي خَلَقَكَ فسَوَّاكَ فَعَدَلَكَ فِي أَيِّ صُورَةٍ ما شَاءَ رَكَّبَكَ
“সুরত -এর একটি অর্থ: شكل বা আকৃতি।” [almaany]

৩. বিখ্যাত আরবি অভিধান আল কামুসুল মুহিত-এ বলা হয়েছে,
صُورَةُ: الشَّكْلُ، ج: صُوَرٌ وصِوَرٌ وصُوْرٌ
“সুরত-এর অর্থ শাকল বা আকৃতি।”

৪. বিখ্যাত আরবি অভিধান 'আর রায়েদ' এ বলা হয়েছে,
صورة : شكل. 2- صورة : وجه. 3- صورة : كل ما يصور. 4- صورة : صفة. 5- صورة : نوع
“সুরত-এর একটি অর্থ: শাকল বা আকার।”

• সুরত শব্দটি বাংলা ভাষাতেও রূপ ও আকৃতি উভয় অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে। যেমন:

৫. বাংলা একাডেমী ব্যবহারিক বাংলা অভিধানে এ শব্দটির অর্থ করা হয়েছে: ১. আকৃতি, ২. রূপ।

৬. সুরত2 [surata2 ] বি. 1 চেহারা, আকৃতি [educaling]

৭. ড. ফজলুর রহমান রচিত আরবী-বাংলা ব্যবহারিক অভিধানে সুরত শব্দটির একাধিক অর্থ করা হয়েছে। সেগুলোর মধ্যে একটি হলো: আকৃতি।

• এবার দেখি যারা বলছেন যে, সুরত অর্থ ‘রূপ’ করা যাবে কিন্তু ‘আকার’ করা যাবে না-তাদের বক্তব্য কতটুকু সঠিক?

প্রকৃতপক্ষে রূপ-শব্দেরও একটি অর্থ আকৃতি। আরেকটি অর্থ: সৌন্দর্য, শোভা, খুবসুরতি (উদাহরণ: “রূপ যেন ফেটে পড়ছে।” [উৎস: বাংলা একাডেমী ব্যবহারিক বাংলা অভিধান] তাহলে বুঝা গেল, বাংলা ভাষায় রূপ এবং আকৃতিও সমার্থবোধক।

আমার কাছে মনে হয়েছে, আরবি ও বাংলা ভাষা সাহিত্যে সীমাবদ্ধ জ্ঞানের কারণে এ ধরণের বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। আমরা জানি, সব ভাষাতেই একটি শব্দের একাধিক অর্থ থাকে এবং অবস্থা ও প্রেক্ষাপট অনুযায়ী আলোকে তা ভিন্ন ভিন্ন অর্থে ব্যবহৃত হয়। এখানেও এ শব্দগুলোর একাধিক অর্থ রয়েছে। সেখান থেকে কেবল উদ্দিষ্ট অর্থটি এখানে পেশ করা হয়েছে।

❑ ‘সুরত’ শব্দের অর্থ: আকার-আকৃতি করার বৈধতা বিষয়ে আলেমদের ফতোয়া:

১. আল্লাহর সূরত সিফাতের অনুবাদ হিসেবে ‘শাকল’ (আকার)’ বলা বৈধ মর্মে মিশরের প্রখ্যাত সালাফী শাইখের ফতোয়া:

মিশরের বিশিষ্ট সালাফি বিদ্বান, আলেকজান্দ্রিয়া ইউভার্সিটির প্রফেসর শায়খ ড. তালা'আত যাহরান হাফিযাহুল্লাহ-এর সাথে এ সম্পর্কে প্রশ্নোত্তর:
السؤال: السلام عليكم ورحمة الله وبركاته. أحسن الله إليكم شيخنا،أنا من بنجلاديش. هل تترجم صفة الصورة لله بمعنى الهيئة والشكل ؟ أفيدونا بارك الله فيكم. الجواب: نعم صحيح.

প্রশ্ন: আসসালামুয়ালাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ ওয়া বারাকাতুহ। আল্লাহ আপনার প্রতি ইহসান করুন, শায়খ, আমি বাংলাদেশ থেকে বলছি। আল্লাহর "সূরত" সিফাতটি কি শাকল ও হাইয়াত (আকার ও আকৃতি) অর্থে অনুবাদ করা যাবে? উপকৃত করবেন, বারাকাল্লাহু ফীকুম।
উত্তর: হ্যাঁ, সঠিক।

২. সৌদি আরবের সাবেক গ্র্যান্ড মুফতি শাইখ ইবনে বায রহিমাহুল্লাহ-এর খাস ছাত্রদের অন্যতম, অসংখ্য কিবার উলামা ও মুহাদ্দিসদের থেকে তাযকিয়া ও ইজাযা প্রাপ্ত শাইখ, প্রখ্যাত দায়ী, শাইখ ড. বদর বিন আলী আলউতাইবী হাফিযাহুল্লাহ-এর ফতোয়া:
السؤال : ‏السلام عليكم ورحمة الله وبركاته. شيخنا الفاضل، أحسن الله إليكم. أنا من بنغلاديش. حدث في بلادنا في الآونة الأخيرة التشنيعُ من قبل بعض السلفيين على بعض الدعاة السلفيين عن ترجمة صفة الصورة لله عز وجل. المشنعون يقولون بأن صفة الصورة لا تترجم إلى البنغالية، مع أننا نجد في كلام العرب أن صفة الصورة تدل على الهيئة والشكل. فهل تترجم هذه الصفة على معنى الشكل والهيئة، أم تترك الترجمة مع إمرراها كما وردت؟
الجواب : ‏وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته لا مانع من ترجمة كل ما في القرآن والسنة من صفات الله تعالى من غير تمثيل بالمخلوق. وصورة الشيء لو ترجمت بلغة أخرى بمعنى: الهيئة والشكل لا بأس في ذلك
প্রশ্নকারী: আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহ। আমাদের সম্মানীয় শাইখ, আল্লাহ আপনার প্রতি অনুগ্রহ করুন। আমি বাংলাদেশ থেকে বলছি। সম্প্রতি আমাদের দেশে এরকম ঘটনা ঘটেছে যে, কিছু সালাফি ব্যক্তি কতিপয় সালাফি দায়ীর নিন্দা-সমালোচনা করছে মহান আল্লাহর সূরত সিফাতের অনুবাদ করা নিয়ে। নিন্দুকরা বলছে, সূরত সিফাতকে বাংলা ভাষায় অনুবাদ করা যাবে না। অথচ আমরা আরবি ভাষায় দেখি, সূরত সিফাতটি শাকল ও হাইআত (আকার ও আকৃতি) বোঝায়। তাহলে এই সিফাতকে কি শাকল ও হাইআত (আকার ও আকৃতি) এর অর্থ অনুযায়ী অনুবাদ করা যাবে, নাকি সিফাতটি অনুবাদ না করে যেভাবে এসেছে সেভাবেই বর্ণনা করে রেখে দিতে হবে?
শাইখ: ওয়া আলাইকুমুস সালাম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহ। কুরআন-সুন্নাহয় মহান আল্লাহর যত সিফত বর্ণিত হয়েছে, সবগুলোর অনুবাদ করায় কোনও বাধা নাই, যদি তাতে মখলুকের সাথে সাদৃশ্য দেওয়া না হয় তাহলে। সুতরাং কোনও কিছুর সূরত যদি অন্য ভাষায় হাইআত ও শাকল (আকার ও আকৃতি) এর অর্থ অনুযায়ী অনুবাদ করা হয়, তাহলে তাতে কোনও সমস্যা হবে না।

উৎস: শাইখ বদরের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টের প্রাইভেট মেসেজ-বক্সে তাঁর প্রশ্নোত্তর। [কৃতজ্ঞতা সহ ফতোয়া দুটি সংগ্রহ করা হয়েছে প্রিয় ভাই yiakubabulkalam-এর টাইম লাইন থেকে]
তাহলে একাধিক আরবি ও বাংলা অভিধান এবং বিজ্ঞ আলেমদের ফতোয়ার আলোকে প্রমাণিত হল যে, সুরত ও শাকল শব্দটি সমার্থবোধক। অতএব সুরত শব্দটির অর্থ: রূপ এবং আকার-আকৃতি গ্রহণ করতে কোনও আপত্তি নাই।

❑ সর্বশেষে আমাদেরকে দুটি বিষয়ে মনে রাখতে হবে:

১ম: আল্লাহর সিফত ও সুরত কেবল তাঁর মত। তাঁর সাথে সৃষ্টির কোনও সাদৃশ্য নেই। আল্লাহ তাআলা বলেন,
لَيْسَ كَمِثْلِهِ شَيْءٌ ۖ وَهُوَ السَّمِيعُ الْبَصِيرُ
“কোন কিছুই তাঁর অনুরূপ নয়। তিনি সব শুনেন, সব দেখেন।" [সূরা শুরা: ১১]

২য়: আল্লাহর সুরত (রূপ কিংবা আকার) দ্বারা কেবল সেই সিফতই সাব্যস্ত করতে হবে যা কুরআন ও বিশুদ্ধ হাদিসের বর্ণিত হয়েছে। যেমন: আল্লাহর হাত, পা, চোখ, আঙ্গুল ইত্যাদি। এখানে ইজতিহাদ করে কুরআন-সুন্নাহর বাইরে নতুন কোন সিফত সাব্যস্ত করা জায়েজ নেই। (যেমন: কান, নাক, পেট ইত্যাদি-এগুলো সাব্যস্ত নয় )। সুতরাং আরবি ভাষায় আল্লাহর জন্য ‘সুরত’ শব্দটি প্রমাণিত হলেও ‘শাকল’ শব্দটি প্রমাণিত নয়।

সারাংশ: সুরত শব্দটির বাংলা অর্থ: রূপ অথবা আকার-আকৃতি উভয়টি সঠিক। এগুলোর কোনটিকেই আরবি অথবা বাংলা ভাষাগত দিক থেকে ভুল বলার সুযোগ নেই। তবে এর উপর ভিত্তি করে, কুরআন ও সহিহ সুন্নাহর বাইরে আল্লাহ তাআলার জন্য নতুন কোনও সিফত (গুণ-বৈশিষ্ট্য) সাব্যস্ত করা জায়েজ নয়। বরং এর দ্বারা কেবল সে সকল সিফতই উদ্দেশ্য হবে, যেগুলো কুরআন ও সহিহ সুন্নাহ দ্বারা সাব্যস্ত হয়েছে।

আল্লাহু আলাম।
লেখক: আব্দুল্লাহিল হাদী বিন আব্দুল জলীল
দাঈ, জুবাইল দাওয়াহ এন্ড গাইডেন্স সেন্টার, সৌদি আরব
সম্ভবত আকিদা বিভাগে পোস্টটা দেয়া উচিত।
 

abdulazizulhakimgrameen

Altruistic

Uploader
Salafi User
Credit
19,690
এই পোস্ট আমি একবছর আগে পড়েছি। আমাদের উচিত উভয় পোস্ট পড়া। তারপর সিদ্ধান্ত নেওয়া। আর আমার কাছে আল্লাহর সাথে সুরত এর অর্থ আকার করা ভুল মনে হয়েছে কয়েকটি কারণে। ১) বাংলা ভাষায় সুরত এর অর্থ রূপ ও আকার দুটোই বোঝায় এঠা ঠিক কিন্তু কেউ কি জানতে চেয়েছেন বাংলা ভাষায় আকার বলতে কি বোঝায়? আকার বলা হয় যাকে আঁকা সম্ভব। এখন আমার প্রশ্ন আল্লাহকে কি আঁকা সম্ভব? ২) আকার বোঝায় যাকে যার নির্দিষ্ট সিমানা আছে। এখন প্রশ্ন আল্লাহ কি সীমা নাকি সীমাহীন। আপনি যখন ভাষা বিদদের আকার অর্থ গ্রহণ করবেন তখন এগুলোকে আপনাকে গ্রহণ করতে হবে। আসলে ভাষা বিদদের এইসব পরিভাষা আল্লাহ রাব্বুল আলামীন এর সাথে ব্যবহার করা যাবে না বরং আল্লাহ ব্যতীত তার সৃষ্টির জন্য ব্যবহার করা যাবে । উদাহরণ স্বরূপ আল্লাহর নাম হল عليم যার অর্থ জ্ঞানী এর আরেকটি প্রতিশব্দ আছে عقيل এর অর্থ জ্ঞানী। এখন কোন ব্যক্তির ক্ষেত্রে উভয়টি ব্যবহার করা যায় কিন্তু আল্লাহ কে عليم এর স্থানে عقيل নামে নামকরণ করা যাবে না। এছাড়া আরো সমস্যা আছে। তাই সুরত এর অর্থ রূপ করায় শ্রেয়। আসলে আমরা যদি রূপ অর্থ করি তাহলে আমাদের কেউ ভুল বলতে পারবে না কিন্তু আকার বলা যাবে কি না তা নিয়ে সংশয় আছে। আমাদের উচিত বিতর্কের উর্ধ্বে উঠে আমাদের আমল ঈমানকে হেফাজত করা। মহান আল্লাহ তায়ালার আমাদেরকে হেফাজত করুন। আমিন।
 
Top